সোমবার, ২১ Jun ২০২১, ১২:৫১ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
বরিশালে রবি ম্যানেজার পরিচয়ে ২০ হাজার টাকা হাতিয়ে নিল প্রতারক চক্র। ভাইয়ের অপরিপুর্ন কাজ পুরন করতে ২৮ নং ওয়ার্ডে আলোচনায় হুমায়ন কবির। আজ ফাইজাতুল আয়শা আভার শুভ জন্মদিন। ওয়াল্ড ভিশন বাংলাদেশ বরিশাল শাখার উদ্যোগে বিশ্ব পরিবেশ দিবস পালিত। বরিশাল মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতিকে অব্যাহতি, কমিটি বিলুপ্ত সাবেক কাউন্সিলর জাকির হোসেন জেলাল মারা গেছেন কলেজছাত্রীর মৃত্যু: মামলা তুলে নিতে অর্থের প্রস্তাবসহ হুমকি। বরিশালে ঘূর্ণিঝড় ‘ইয়াস’র তান্ডব শুরু বরিশালের হিজলায় বিনা নোটিশে পোল্টি মুরগীর খামারের লাইন কর্তনে ৩শো মুরগির প্রাণহানি। ফের ফিলিস্তিনিদের ওপর ইসরায়েলি হামলা আজ তরুণ সাংবাদিক আল আমিন গাজীর শুভ জন্মদিন। যুদ্ধবিরতির পর ফিলিস্তিনিদের ‘বিজয়োল্লাস’ সাংবাদিক রোজিনার মুক্তির দাবিতে বরিশাল বিভাগীয় অনলাইন প্রকাশক ও সম্পাদক পরিষদের মানববন্ধন সাংবাদিক রোজিনার মুক্তির দাবিতে বরিশাল মেট্রোপলিটন প্রেসক্লাবের মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সাংবাদিক রোজিনার মুক্তির দাবিতে বরিশাল তরুণ সাংবাদিক ঐক্য পরিষদের বিবৃতি। ফিলিস্তানে সেনাবাহিনী পাঠাতে প্রস্তুত মালয়েশিয়া রোজিনাকে হেনস্তা, গ্রেপ্তার ও মন্ত্রণালয়ের ব্যাপারে যা বললেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী সাংবাদিক রোজিনার মুক্তির দাবিতে শাহবাগ থানায় সাংবাদিকদের অবস্থান কিশোরকে বেঁধে নির্যাতন, দেওয়া হয় বৈদ্যুতির শক বরিশালে বাসদ কর্মীর মামলায় আ’লীগ কর্মী গ্রেপ্তার, প্রতিবাদে থানা ঘেরাও করে বিক্ষোভ
একজন ফয়সালের রাকিবের চোখে ঐতিহ্যময় ১৮ বছরের প্রাচীন “দৈনিক সত্য সংবাদ”।

একজন ফয়সালের রাকিবের চোখে ঐতিহ্যময় ১৮ বছরের প্রাচীন “দৈনিক সত্য সংবাদ”।

সৈয়দ জিহাদ (মন্তব্য প্রতিবেদন) :সময়টা বছর তিন আগের কথা। লেখালেখির নেশায় একটা সময় বুদ হয়ে পড়েছি। খুব একটা লিখতে চাইলেও অনলাইন ছাড়া তেমন প্রকাশ পেতনা।যদিও গোটাকয়েক সহকর্মীর কর্মরত কাগজগুলোয় সংবাদের ভীরে তেমন গুরুত্ব পেতনা আমার লেখাগুলো।

তবে আমি বলতে চাইনা বেশভাল লেখি।সমাজের ঘটে যাওয়া নিত্যদিনের চিত্র-গুলোকে লেখার ভাবে প্রকাশ করার চাহিদামাত্র।

বিভিন্ন সংবাদকর্মীদের ভীরে অনেক পত্রিকায় মেইলে কিংবা সরেজমিনে গিয়ে তথ্য-উপাত্ত দিলেও তেমন গুরুত্ববহ পেতনা।
তবে অন্তগত দিক থেকে এ নিয়ে ধাক্কা লাগলেও নিরাশ হয়নি।বরংচ লক্ষটা ঘুরিয়ে একটি দৈনিক পত্রিকার খোঁজে নেমেছি।যেখানে নিজের লেখাগুলো স্বাধীনভাবে প্রকাশ করতে পারি এমনকি পক্ষপাত্বিতের আবহ থেকে সংবাদটি যেন নিরপেক্ষ ও সত্য প্রকাশ পায় এটিই চিন্তায় ছিল।

সেজন্য সত্য লেখার জন্য চেয়েছিলাম কিংবা খুঁজেছিলাম একটি নির্ভীক কাগজ। যেন সাদা কাগজটিতে কালো লেখা গুলো গর্জনের ন্যায় ফুটে উঠবে। এনিয়ে দীর্ঘদিন ঘোরপাকের ন্যায় সাংবাদিক মেহরাজ রাব্বি ভাইর সাথে পরিচয় হয়ে যায়। পরিচয় হওয়ার একপর্যায়ে তার লক্ষের সাথে আমার শতাংশ লক্ষই মিলে যায়। বিষয়টি নিয়ে দেরি না করে যথাযথ কার্যক্রমের মাধ্যমে ১৮ বছরের প্রাচীন একটি দৈনিক কাগজের সন্ধান পাই। কাগজটির নাম দৈনিক সত্য সংবাদ।এবং এই পত্রিকাটির স্লোগানটাও ছিল অন্যায়ের সাথে আপোষ না করার। “মিথ্যার দুয়ারে হানি আঘাত”। একটু অনুসন্ধানে গিয়ে জানতে পারলাম,পত্রিকাটির প্রতিষ্ঠাতা বিশিষ্ট আইনজীবী এ্যাড.মহসিন মন্টু ভাই।দীর্ঘদিন ধরে মন্টু ভাই পরিচালনা করে আসলেও ওকালতি কাজে ব্যাস্ত হয়ে পড়ায় সময় দিতে পারেনি। তখন বরিশালের বিশিষ্ট সাংবাদিক মীর মনিরুজ্জামান ভাই এককালীন ১০ বছর পত্রিকাটি পরিচালনা করে আসছিলেন।তবে বিধাতার ডাকে সাড়া দিয়ে মনির ভাই না ফেরার দেশে চলে যাওয়ার কারনে সাময়িক সময়ে পত্রিকাটির সকল কার্যক্রম ভেংগে পড়ে।এরপর থেকেই বরিশাল নগরীর অনামী লেনের পুরানো সেই সত্য সংবাদ কার্যালয়ে পাঠক থেকে শুরু করে সংবাদকর্মীদের ভীর কমে যায়।
একপর্যায়ে পুরো কার্যক্রম বন্ধ হয়ে পত্রিকাটি পাঠকশুন্যতায় রুপ নেয়।

সর্বোপরি,পত্রিকাটি আমি নেওয়ার জন্য আমার সহকর্মী মেহরাজ ভাইর সাথে আলোচনা শেষে সিদ্ধান্তে পৌঁছায়।তখন পত্রিকাটির কর্নধার মহসিন মন্টু ভাইর অনুমতি সাপেক্ষে এবং প্রয়োজনীয় বাধ্যবাধকতা মেনে প্রকাশনার জন্য প্রস্ততি নেই।

তবে একটি ৩ টাকা মুল্যের সাদা কাগজটি কালো লেখার প্রকাশনা বের করতে যে কতটা শ্রম এবং দায়িত্ব কাঁধে নিতে হয় সেটা এই দায়িত্বগুলো না নিলে উপলব্ধিই করতে পারতাম নাহ।একমাত্র যারা পত্রিকা প্রকাশনার দায়িত্বে থাকে তারাই এর মর্মতা টা বুজবে।এগুলা বিস্তারিত বলে বোজানো যাবেনা বটে এবং চাইনা।

সকল প্রক্রিয়াশেষে আমাদের “দৈনিক সত্য সংবাদ পত্রিকাটি নগরজুড়ে সাজ-সকালের কর্মরত হকারের হাতে তুলে দিই। আত্নবিশ্বাস এটাই ছিল যে,আবারো এই ধানসিঁড়ির চিরচেনা শহরে প্রান ফিরেপাক দৈনিক সত্য সংবাদ নামক এই প্রাচীন পত্রিকাটি।

তো এবার আসি আমার হেডলাইনের উক্তিটির বিশ্লেষণ দিতে।
বেশ কয়েকমাস প্রকাশনা বের করার প্রাক্কালে,আমাদের প্রিয় এই দৈনিক পত্রিকাটি বন্ধে হবার পথে।বিষয়টি নিয়ে নিজের ভিতরই মানসিকযন্ত্রনা দিচ্ছে। এতটা সাধনা করে প্রকাশনা করার পুর্বমুহুর্তেই বন্ধ হবে এটা মেনে নেওয়া যায়না।
সারসংক্ষেপে বলতে চাই, আমার সহকর্মী মেহরাজ ভাইর সম্পাদনায় চলছিল পত্রিকাটি। তবে তার পারিবারিকসু্ত্রে একটি বড়ধরনের ঝামেলা হওয়ার কারনে সে সময় দিতে পারেনাই।তদ্রুপ পত্রিকাটির একটি অংশ প্রকাশনাশুন্য হয়ে যায়।
এমতাবস্থায়,দিশেহারা হয়ে খুব অল্প সময়ে পত্রিকাটি চলমান রাখার জন্য আমার আরেক সহকর্মী সাংবাদিক রাকিবুল হাসানের শরনাপন্ন হই।যদিও ফয়সাল রাকিব নামে বেশ পরিচিত এই সহকর্মী ভাই।তার সাথে দ্রুত আলাপরিচাতায়,কিভাবে এবং কোথা থেকে প্রকাশনা করব সেই সিদ্ধান্তে অটল হয়ে দ্রুত কাগজটি শহরকেন্দ্রিক চলমান রাখি।পর্যায়ক্রমে সহকর্মী ফয়সাল রাকিবকে সম্পাদনায় রেখে পত্রিকাটির কর্নধারের মতামত চেয়ে আমরা নতুনভাবে এর কার্যক্রম শুরু করি।বেশ সফলতার সাথে এগিয়েও গিয়েছি। তো এবার চিন্তা করলাম আর পিছনে ফিরে তাকাতে হবেনা।ঠিক সেটাই ঘটছে। সুনামের সাথে সাংবাদিক ফয়সাল রাকিব ভাইকে নিয়ে ২ বছর আমাদের পত্রিকার গন্ডি পেড়িয়ে গিয়েছি।
এর ভিতর করোনাকালীন সময়েও আমাদের পত্রিকাটি ফয়সাল ভাইয়ের একান্ত প্রচেষ্টায় নিয়মিত বাজারে বের করার চেষ্টা করেছি।প্রায় সময়ই ফয়সাল ভাইর সাথে পত্রিকাটির বর্তমান এবং অতীতের বিষয় নিয়ে কথা হয়।তখন সে হঠাত বলে উঠে “ভাই শোনো আমার যতটুকু সামার্থ্য আছে তা দিয়ে আমি এই পত্রিকাটি শহরে প্রকাশ করার চেষ্টা করবো।আমি চাইনা এই পত্রিকাটি কখনও অকারনে বন্ধ হয়ে যায়।ইন্সাল্লাহ যেকোনো মুল্যে আমি সহ তোমাদের নিয়ে এটা সত্য লিখনির মধ্য দিয়ে পাঠকের দাড়গোরায় পৌঁছে দিব।কারন,এই এই পত্রিকাটি বরিশালের সংবাদজগতে একটি ঐতিহ্য বহন করে।এছাড়া বরিশালের বিভিন্ন পেশাগত সাংবাদিকের হাতেখড়ি এই কাগজটির মাধ্যমে।সেখানে আমি এবং তোমরা দায়িত্ব পেয়ে গর্বিত।তাই আমাদের গর্বের এই স্থান থেকে হলেও আমরা সদা-সত্য লিখে দৈনিক সত্য সংবাদ নামক এই পত্রিকাটিকে এগিয়ে নিয়ে যাব।

তখন তার এই দু-চার মিনিটের কথোপকথন গুলোকে ইচ্ছে ছিল সংবাদের কাগজে কিছুটা হলেও রুপ দেব।কারন সংবাদপত্রের প্রতি কতটা ভালোবাসা থাকলে এই কথাগুলো বলছে সেটা তখনকার সময়ে আমিই স্বাক্ষি ছিলাম।

সম্মানিত পাঠক,তর্কে-বিতর্কে,আলোচনা- সমালোচনার সম্মুখীন হয়েও এই করোনাকালে আমরা এই পত্রিকাটি প্রকাশনা করে আসছি এবং আমার সহকর্মী ফয়সাল রাকিবের চোখে সত্যিই প্রাচীন এই দৈনিকটি নিয়ে নানা স্বপ্ন রয়েছে।একমাত্র পাঠক এবং শুভাকাঙ্ক্ষীদের ভালবাসায় এই স্বপ্নগুলো পুরন করতে সহযোগিতা করবে বলে আমি মনে করি।তাই সকলে ছোট-বড় ভেদাভেদ ভুলে এক ছায়ার তলে থেকে সামনে এগিয়ে যাবো এই প্রত্যাশা কামনা করি।
খোদা হাফেজ।

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2017