সোমবার, ২১ Jun ২০২১, ০৮:২৬ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
বরিশালে রবি ম্যানেজার পরিচয়ে ২০ হাজার টাকা হাতিয়ে নিল প্রতারক চক্র। ভাইয়ের অপরিপুর্ন কাজ পুরন করতে ২৮ নং ওয়ার্ডে আলোচনায় হুমায়ন কবির। আজ ফাইজাতুল আয়শা আভার শুভ জন্মদিন। ওয়াল্ড ভিশন বাংলাদেশ বরিশাল শাখার উদ্যোগে বিশ্ব পরিবেশ দিবস পালিত। বরিশাল মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতিকে অব্যাহতি, কমিটি বিলুপ্ত সাবেক কাউন্সিলর জাকির হোসেন জেলাল মারা গেছেন কলেজছাত্রীর মৃত্যু: মামলা তুলে নিতে অর্থের প্রস্তাবসহ হুমকি। বরিশালে ঘূর্ণিঝড় ‘ইয়াস’র তান্ডব শুরু বরিশালের হিজলায় বিনা নোটিশে পোল্টি মুরগীর খামারের লাইন কর্তনে ৩শো মুরগির প্রাণহানি। ফের ফিলিস্তিনিদের ওপর ইসরায়েলি হামলা আজ তরুণ সাংবাদিক আল আমিন গাজীর শুভ জন্মদিন। যুদ্ধবিরতির পর ফিলিস্তিনিদের ‘বিজয়োল্লাস’ সাংবাদিক রোজিনার মুক্তির দাবিতে বরিশাল বিভাগীয় অনলাইন প্রকাশক ও সম্পাদক পরিষদের মানববন্ধন সাংবাদিক রোজিনার মুক্তির দাবিতে বরিশাল মেট্রোপলিটন প্রেসক্লাবের মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সাংবাদিক রোজিনার মুক্তির দাবিতে বরিশাল তরুণ সাংবাদিক ঐক্য পরিষদের বিবৃতি। ফিলিস্তানে সেনাবাহিনী পাঠাতে প্রস্তুত মালয়েশিয়া রোজিনাকে হেনস্তা, গ্রেপ্তার ও মন্ত্রণালয়ের ব্যাপারে যা বললেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী সাংবাদিক রোজিনার মুক্তির দাবিতে শাহবাগ থানায় সাংবাদিকদের অবস্থান কিশোরকে বেঁধে নির্যাতন, দেওয়া হয় বৈদ্যুতির শক বরিশালে বাসদ কর্মীর মামলায় আ’লীগ কর্মী গ্রেপ্তার, প্রতিবাদে থানা ঘেরাও করে বিক্ষোভ
শেবাচিমে ইন্টার্নদের কর্মবিরতিতে ভোগান্তিতে রোগীরা

শেবাচিমে ইন্টার্নদের কর্মবিরতিতে ভোগান্তিতে রোগীরা

অনির্দিষ্টকালের জন্য কর্মবিরতির কারণে রোববার দ্বিতীয় দিনেও কাজে যোগ দেননি বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ইন্টার্ন চিকিৎসকরা।

তারা পার্সেন্টিজ (হাজিরা) খাতায় স্বাক্ষর করলেও রোববার সকাল থেকে কোন ইন্টার্নকে ওয়ার্ডে রোগীর চিকিৎসা বা খোঁজ খবর নিতে দেখা যায়নি।

রোগী ও তাদের স্বজনদের অভিযোগ ইন্টার্নরা আন্দোলন করলেও অন্য চিকিৎসকরাও গত শনিবার দুপুরের পর থেকে রোববার সন্ধ্যা পর্যন্ত তাদের খোঁজ খবর নেননি। দেননি কোন চিকিৎসা সেবা। নার্সদের পরামর্শে পূর্বে দেয়া চিকিৎসা অনুযায়ী একটি দিন পার করেছেন রোগীরা।

এমন পরিস্থিতির কারণে অনেকা অসহায় হয়ে পড়েছেন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন প্রায় সহ¯্র রোগী। এর পরেও ইন্টার্নদের আন্দোলন পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে তেমন উদ্যোগী হতে দেখা যাচ্ছে না বলে অভিযোগ সংশ্লিষ্টদের।

যদিও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলছে, ‘বর্তমানে তাদের ২২৪টি পদের স্থলে মাত্র ৯১ জন চিকিৎসক কর্মরত রয়েছেন। তবে এটি পাঁচ শয্যার হাসপাতালের রোগীদের জন্য বরাদ্দকৃত পদ ছিলো। বর্তমানে হাজার শয্যার এ হাসপাতালে দেড় হাজারের অধিক রোগী ভর্তি থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন। অথচ নতুন করে কোন পদ সৃষ্টি করা হয়নি।

তাই ৯১ জন চিকিৎসকের পাশাপাশি প্রায় আড়াইশ ইন্টার্ন এর সহযোগিতায় রোগীর চিকিৎসা সেবা চালিয়ে যাওয়া হচ্ছে। ইন্টার্নরা কাজে যোগ না দেয়ায় চিকিৎসা সেবায় কিছুটা বিলম্ব হচ্ছে। তার পরেও চিকিৎসক সংকটের মধ্যেও রোগীদের নিয়মিত চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করণের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন বলে জানান হাসপাতাল পরিচালক।

হাসপাতালের বিভিন্ন সূত্র জানিয়েছে, ‘ইন্টার্নরা শিক্ষানবিশ হলেও হাসপাতালে চিকিৎসা সেবার ক্ষেত্রে মূল ভূমিকাটাই রাখেন তারা। তারা হাসপাতালে ২৪ ঘণ্টা রোগীর সেবায় নিয়োজিত থাকেন। নতুন ভর্তি রোগীর প্রাথমিক চিকিৎসা সূচনা হয়ে থাকে ইন্টার্নদের মাধ্যমে। কিন্তু কর্মবিরতির কারণে শনিবার দুপুর থেকে রোগীদের প্রাথমিক চিকিৎসাও অনেকটা বন্ধ রয়েছে।

ইন্টার্নরা জানিয়েছেন, ‘কমিশন বাণিজ্যের প্রতিবাদ করায় হাসপাতালের মেডিসিন ইউনিটি-৪ এর সহকারী রেজিস্ট্রার ডা. মাসুদ খান ইন্টার্ন ডক্টরস এ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি সজল পান্ডে ও সাধারণ সম্পাদক তরিকুল ইসলামের নাম উল্লেখ করে ৮-১০ জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেছেন।

এর প্রতিবাদসহ তিন দফা দাবিতে ইন্টার্ন ডক্টরস্ অ্যাসোসিয়েশনের আহ্বানে কর্মবিরতি পালন শুরু করেছেন ইন্টার্নরা। তাদের দাবিগুলো হল, ডা. মাসুদ খান কর্তৃক দায়েররকৃত মামলা প্রত্যাহারসহ নানা মাধ্যমে হয়রানি অনতিবিলম্বে প্রত্যাহার করা, ডা. মাসুদ খান এর বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগের সুষ্ঠু বিচার করা এবং সামাজিক যোগাযোগ ও গণমাধ্যমে প্রচারকৃত অসত্যের জন্য মানহানির বিচার করা।

এ দাবি না মানা পর্যন্ত তারা কর্মস্থলে যোগ দিবেন না বলে জানিয়েছেন ইন্টার্ন ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশনের শীর্ষ স্থানীয় নেতারা।

প্রসঙ্গত, ‘গত ২১ অক্টোবরর শেবাচিম হাসপাতালের মেডিসিন ইউনিট-৪ এর সহকারী রেজিস্ট্রার ডা. মো. মাসুদ খান শিক্ষানবিশ চিকিৎসকদের সংগঠনের সভাপতি সজল পান্ডে এবং সাধারণ সম্পাদক ডা. তরিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে তাকে মারধরের অভিযোগ এনে পরিচালক বরাবর লিখিত অভিযোগ করেন। এরপর ২২ অক্টোবর পরিচালক বরাবর পাল্টা অভিযোগ দেন ইন্টার্ন চিকিৎসকরা।

এই ঘটনায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করেন। কমিটিকে পাঁচ কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। প্রতিবেদন দাখিলের আগেই গত ২৯ অক্টোবর রাতে ডা. মাসুদ খান বাদী হয়ে সজল পান্ডে ও তরিকুলসহ ৮-১০ জনকে অভিযুক্ত করে থানায় মামলা করেন।

এ খবর পেয়ে ইন্টার্ন চিকিৎসকরা কর্মবিরতি ডেকে রাত ১২টার দিকে হাসপাতালের জরুরী বিভাগসহ সকল গেট বন্ধ করে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন। পরে হাসপাতাল ও কলেজ কর্তৃপক্ষের আশ্বাসে টানা আড়াই ঘণ্টা পরে কাজে ফেরেন ইন্টার্নরা। পরে আশ্বাসের বাস্তবায়ন না ঘটায় শনিবার থেকে ফের কর্মবিরতি শুরু করেন তারা।

এ প্রসঙ্গে হাসপাতাল পরিচালক ডা. মো. বাকির হোসেন গণমাধ্যমকে বলেন, ‘দুই পক্ষকে নিয়ে রোববার আলোচনায় বসেছিলাম। কিন্তু কোন পক্ষই নিজ নিজ অবস্থান থেকে ছাড় দিতে রাজি নয়। যে কারণে সমঝোতাও হয়নি। তবে সমস্যা সমাধানে চেষ্টা চলমান রয়েছে বলেন তিনি।

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2017